চলে গেলেন ফুটবলের রাজা ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি ফুটবলার পেলে

0

চলে গেলেন ফুটবলের রাজা ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি ফুটবলার পেলে। ৮২ বছর বয়সে তিনি মারা গেছেন। শরীরের সঙ্গে লড়াই চালিয়েছিলেন দীর্ঘদিন, শেষ পর্যন্ত আর পারলেন না। ক্যান্সারের সঙ্গে দীর্ঘদিনের লড়াই শেষে ৮২ বছর বয়সে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করলেন তিনি। শুধু ক্রীড়া অঙ্গনেই নয়, সামাজিক-মানবিক কাজে বিশ্বের বুকে তিনি অনন্য এক দৃষ্টান্ত।

ফুটবল ইতিহাসে একমাত্র ফুটবলার হিসেবে তিনটি বিশ্বকাপ জয় করেন এডসন অ্যারানটিস দো নাসিমেন্ট, ডাক নাম যার পেলে। সবাই ভালোবেসে ডাকতো ‘কালো মানিক’ বলে। ১৯৫৮ সালে যখন ব্রাজিল বিশ্বকাপ জয় করে, তখন পেলের বয়স ছিল কেবল ১৭ বছর। এরপর ১৯৬২ এবং ১৯৭০ সালেও বিশ্বকাপ জয় করেন তিনি। ২০০০ সালে ফিফার শতাব্দীর সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন। তার একুশ বছরের ক্যারিয়ারে ১ হাজার ৩৬৩টি ম্যাচে ১ হাজার ২৮১টি গোল করেছেন। ১৯৭০ সালে বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় হিসেবে ফিফা গোল্ডেন বল পুরস্কারও জেতেন তিনি। ফুটবলের বাইরে নানামুখী সামাজিক-মানবিক কাজে সক্রিয়ভাবে যুক্ত ছিলেন সদ্যপ্রয়াত কিংবদন্তি ফুটবলার পেলে। অবসরের যাওয়ার পরও পেলে ছিলেন বিশ্ব তারকা। ইউনিসেফের সঙ্গে কাজের স্বীকৃতি হিসেবে তাঁকে সংস্থাটি ১৯৭৮ সালে ‘আন্তর্জাতিক শান্তি পুরস্কার’ দেয়। ১৯৯২ সালে জাতিসংঘের বাস্তুসংস্থান ও পরিবেশবিষয়ক দূত হন তিনি, ১৯৯৪ সালে হন ইউনেসকোর শুভেচ্ছাদূত।

১৯৯৫ সালে পেলে ব্রাজিলের ক্রীড়ামন্ত্রী নিযুক্ত হয়ে দেশের ফুটবলকে দুর্নীতিমুক্ত করতে নেন নানা পদক্ষেপ। দাতব্যকাজের উদ্দেশ্যে পেলে তাঁর কয়েক দশকের সংগ্রহশালা থেকে ১ হাজার ৬০০টির বেশি সামগ্রী নিলামে তোলেন ২০১৬ সালে। সেখান থেকে সংগ্রহ করেন ৩ দশমিক ৬ মিলিয়ন ডলার অর্থ । ২০১৮ সালে প্রতিষ্ঠিত তাঁর নিজের দাতব্য সংস্থা ‘পেলে ফাউন্ডেশন’ সারা বিশ্বের দরিদ্র ও অধিকারবঞ্চিত শিশুদের ক্ষমতায়নে কাজ করে আসছে। ২০১৫ সালে স্নায়ুর সমস্যায় মেরুদণ্ডে অস্ত্রোপচারও করা হয় তার। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কিডনি সমস্যায় ভুগছিলেন বিশ্ব ফুটবলের এই কিংবদন্তী। ২০২১ সালে শরীরে আবারও অস্ত্রোপচার টিউমার অপসারণের জন্য। চলতি বছর ২০২২ সালের নভেম্বরে তাকে আবারও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ফুটবল মাঠে তার সামনে বাঁধা হয়ে দাঁড়াতে পারেননি প্রতিপক্ষের কোনো ডিফেন্ডার। সেই তিনি জীবনের মাঠে হার মানলেন মরণব্যাধি ক্যান্সারের কাছে। ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াইটা ছিলো দীর্ঘদিনের, আর পারলেন না, নিজেকে সপে দিলেন মৃত্যুর কোলে।

Share.

Comments are closed.